অন্যান্য

পীরগঞ্জে স্কুলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ছাত্র নিহত : ওসিসহ আহত ১০ গ্রেফতার ১১

  পীরগঞ্জ(রংপুর)প্রতিনিধিঃ 11 October 2022 , 6:57:42 প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুরের পীরগঞ্জে গোপনে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ৮ম শ্রেণির ছাত্র রমজান আলী আকাশ নিহত হয়েছে। এ সময় পীরগঞ্জ থানার ওসি, ৭ পুলিশ সদস্য, প্রধান শিক্ষক সহ ১০ জন আহত হয়েছে।  সোমবার বেলা ১২ টার দিকে উপজেলার মদনখালী ইউনিয়নের খেতাবেরপাড়া পল্লী মঙ্গল (পি এম) উচ্চ বিদ্যালয়ে ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ ১১ জনকে আটক করেছে। পীরগঞ্জ থানার এসআই নজরুল, এসআই রিয়াজুল এবং প্রধান শিক্ষক নুরুন্নবী তালুকদারকে গুরুতর আহতাবস্থায় পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ওই ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মন্ডল, রংপুর পুলিশের ডি সার্কেলের এএসপি কামরুজ্জামান, ইউএনও বিরোদা রানী রায়, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শফিউর রহমান মন্ডল মিলন, মদনখালী ইউপি চেয়ারম্যান মঞ্জু মিয়াসহ পুলিশের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
পুলিশ, গ্রামবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মদনখালী ইউনিয়নের খেতাবেরপাড়া পিএমএ উচ্চ বিদ্যালয়ের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন থেকে প্রধান শিক্ষক নুরুন্নবী তালুকদার ও তারই সহকারী শিক্ষক আনোয়ারুল ইসলামের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল। সম্প্রতি ওই স্কুলের অভিভাবক সদস্য নির্বাচনে সহকারী শিক্ষক আনোয়ারুল ইসলামের প্যানেল পরাজিত এবং প্রধান শিক্ষক নুরুন্নবী তালুকদার সমর্থিত প্যানেল থেকে ৩ জন অভিভাবক সদস্য নির্বাচিত হয় এবং মদনখালী ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি শহীদুল ইসলাম বাবুকে স্কুলটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি করা হয়। দূর্গাপুজাসহ ১০ দিন ছুটির পর সোমবার স্কুল খুললে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি শহীদুল ইসলাম বাবুকে স্কুলে প্রবেশে বাধা দিতে সহকারী শিক্ষক আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে শতাধিক গ্রামবাসী লাঠিসোঁটা নিয়ে অবস্থান নেয়। একপর্যায়ে বেলা ১২ টার দিকে প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে আসার পথে স্কুল মাঠের বাইরে তাকে বেধড়ক পেটাতে থাকে। এ সময় দু’গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষ চলাকালে প্রধান শিক্ষককে হত্যা করতে বলম ছুড়ে মারলে প্রধান শিক্ষক সরে দাড়ালে ওই স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র রমজান আলী আকাশের গলায় ধারালো বল্লমটি ঢুকে গেলে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায় বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছুলে শিক্ষক আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে গ্রামবাসী পুলিশের উপরও হামলা চালায়। এ সময় পীরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল আউয়ালকে মারপিট করে আনোয়ার বাহিনী জয় স্পোটিং ক্লাব কক্ষে ওসিকে অবরুদ্ধ করে রাখে। গ্রামবাসীর হামলায় এস.আই আশরাফুল, এসআই নজরুল, এসআই রিয়াজুল, এসআই আকতার, এসআই নুর আলম ও মহিলা পুলিশ সদস্য জ্যোতি আকতার এবং স্কুলের প্রধান শিক্ষক নুরুন্নবী তালুকদার গুরুতর আহত হয়েছেন। পরে দাঙ্গা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আহত পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করে। এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শিক্ষক আনোয়ার সহ ১১ জন কে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো হরনাথপুর গ্রামের দেলদার হোসেন, সেকেন্দার আলী, মদনখালী গ্রামের সাজু, ভাবনচুড়া গ্রামের হারুন মিয়া, নয়াপাড়া গ্রামের হাজের উদ্দিনসহ ১১ জন। এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
পীরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল আউয়াল জানান, ঘটনার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে, মামলা প্রক্রিয়াধীন। ডি সার্কেলের এএসপি কামরুজ্জামান বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সঠিক ঘটনা জানতে ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। আরও আটকের চেষ্টা চলছে।

আরও খবর

Sponsered content

error: ছি ! ছি !! কপি করার চেষ্টা করবেন না ।