সারাদেশ

বন্যার ফলে চলতি রোপা আমনে ধান ও গো খাদ্যের চরম সংকটের আশংকা

  আব্দুর রহিম (পায়েল) , গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি 5 October 2020 , 5:37:07 প্রিন্ট সংস্করণ

বন্যার ফলে চলতি রোপা আমনে ধান ও গো খাদ্যের চরম সংকটের আশংকা

রংপুরের গঙ্গাচড়ায় গো-খাদ্যের চরম সংকট হওয়ার কারণে বেশী মূল্য পাওয়ায় ধান খেত কেটে খড় হিসেবে বিক্রি করছেন বেশ কিছু কৃষক। ধানের মূল্যে কম হওয়ার ভয়ে এখন খড় বিক্রি করেই বেশী অর্থ পাওয়ায় তারা ধান খেত কেটে খড় হিসেবে বিক্রি করছেন বলে জানান কৃষকরা।

এছাড়া উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য অনুযায়ী গত সাত দিনের টানা বর্ষণের ফলে এ উপজেলার প্রায় ২ হাজার হেক্টর আবাদী জমির ধান খেত পানির নিচে তলিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে রোপা আমন মৌসুমে ধানের চরম সংকট হতে পারে বলে সচেতন মহল জানান।

গঙ্গাচড়া বাজার ও মন্থনা বাজারে গিয়ে দেখা যায় কৃষকরা ধান খেত কেটে খড় হিসেবে বিক্রি করছেন এসময় কথা হয় কোলকোন্দ ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের স্কুল পাড়ার কৃষক বাবুল মিয়ার সাথে তিনি প্রশাসনের ভয়ে ধান খেত কেটে খড় হিসেবে বিক্রি করার কথা অস্বীকার করে বলেন, আমি ভিটে মাটিতে আগাম জাতের ধান লাগিয়েছিলাম তবে অতি বৃষ্টির ফলে ধান গাছ গুলো বেশী লম্বা হওয়ায় ধান হেলে পড়ে নষ্ট হয়ে যেতে পারে তাই এখন খড় হিসেবে বিক্রি করছি। এসময় আরও কয়েক জন কৃষক জানান, প্রতি বছর ধানের দাম কম থাকে । ধান বিক্রি করে যে টাকা পাই তাতে চাষ খরচ উঠেনা তাই এখন গরুর খাবার হিসেবে বিক্রি করে বেশী মূল্যে পাওয়ায় ধান পাকার আগেই খেত কেটে বিক্রি করছি। এভাবে ধান খেত কেটে খড় হিসেবে বিক্রি করতে থাকলে যেমন ধানের সংকট হবে ঠিক তেমনি আবারও গো-খাদ্যের চরম সংকট দেখা দিবে বলে সচেতন মহল জানান।

উপজেলা কৃষি অফিসার শরিফুল আলম জানান, বর্তমানে ধানের চারা গুলোর পেটে ধান এসেছে, যাতে কৃষকরা ওই ধান খেত কেটে বিক্রি না করে এজন্য আমরা কৃষকদের সচেতনতামূলক পরামর্শ দিচ্ছি।

আরও খবর

Sponsered content

error: ছি ! ছি !! কপি করার চেষ্টা করবেন না ।