সারাদেশ

রংপুর সদর উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক-সদস্য সচিবসহ অধিকাংশের বাড়ি এক ইউনিয়নে, তৃণমূলে অসন্তোষ

  বঙ্গ ডেস্ক 14 August 2020 , 6:07:13 প্রিন্ট সংস্করণ

রংপুরে ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন, অযোগ্যদের নিয়ে কমিটি গঠন ও এক ইউনিয়ন কেন্দ্রীক আহবায়ক-সদস্য সচিবসহ অধিকাংশ পদ দেয়ায় রংপুর সদর উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠন নিয়ে তৃণমূলে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

এনিয়ে, উপজেলা ছাত্রদলসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। অনেকেই এই কমিটিকে এক ইউনিয়ন ভিত্তিক উপজেলা কমিটি বলে হাস্যকর মন্তব্য করেছেন। অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে এই কমিটিকে পকেট কমিটি হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন।

এদিকে ছাত্রদলের ত্যাগী নেতাকর্মী অবিলম্বে এই কমিটি বাতিল করে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন করে কমিটি গঠনের দাবি জানান।

তৃণমূলের নেতাকর্মীদের অভিযোগ, রংপুর সদর উপজেলা ৫ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত হলেও সদ্য ঘোষিত একটি ইউনিয়নকে প্রধান্য দেয়া হয়েছে। ঘোষিত কমিটির আহবায়ক, ৯ জন যুগ্ম আহবায়কের মধ্যে ৬ জন, সদস্য সচিবসহ ২০ সদস্যের কমিটির অধিকাংশের বাড়ি উপজেলার সদ্যপুষ্করনী পালিচড়া ইউনিয়নে। আর বাকি চার ইউনিয়ন মিলে হাতে গোনা কয়েকটি পদ দেয়া হয়েছে।

তারা বলেন, রংপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ও এক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের যোগসাজগে তাদের আত্বীয়-স্বজন ও অযোগ্যদের দিয়ে সদর উপজেলার পকেট কমিটি গঠন করা হয়েছে। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই সমালোচনার ঝড় উঠেছে। এই কমিটি দ্রুত বাতিল না করা হলে অনেকেই ছাত্রদল থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করবেন।

সূত্রে জানা গেছে, রংপুর সদর উপজেলা ছাত্রদলের  ঘোষিত কমিটির আহবায়ক মামুনুর রশিদের বাড়ি উপজেলার ৪ নং সদ্যপুষ্করুনী ইউনিয়নের কেশবপুর গ্রামে, সদস্য সচিব আব্দুর রাফির বাড়ি পালিচড়া কেরানীপাড়া, একই ইউনিয়নের বকশিপড়ায় যুগ্ম আহবায়ক ওয়ালিদ মিয়া, মাধবপুরে মিঠুন মিয়া ও পালিচড়ায় আরেক যুগ্ম আহবায়ক আবু সূফিয়ানের বাড়ি। এছাড়াও আরও ৩ জন যুগ্ম আহবায়কসহ কমিটির অধিকাংশ সদস্যদের বাড়ি সদ্যপুস্করনী ইউনিয়নে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সদর উপজেলা ছাত্রদলের কয়েকজন নেতাকর্মী জানান, যাদের ইউনিয়ন- ওয়ার্ড পর্যায়ে নেতৃত্ব দেয়ার যোগ্যতা নেয় তাদের উপজেলা কমিটিতে গুরুত্বপূণ পদ দেয়া হয়েছে। সদ্য ঘোষিত কমিটির অনেকের বাবাসহ পরিবারের সদস্যরা ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথেও জড়িত রয়েছেন।

কয়েকজন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ছাত্রদলের রাজনীতি করতে গিয়ে অনেক নির্যাতনের স্বীকার হয়েছি। নিজের ও পরিবারের অর্থিক ক্ষতি করেছি। দলীয় সভা-সমাবেশে নিয়মিত উপস্থিত ছিলাম। অথচ আমাদের মূল্যায়ন করা হলো না। সদর উপজেলায় যে কমিটি দেয়া হয়েছে তাতে অনেক যুগ্ম আহবায়ক আছে, সদস্য আছে যারা জীবনে কখন বিএনপি-ছাত্রদলের দলীয় কার্যালয়ে যায়নি। এমনকি চেনেও না। তারা কিভাবে এত বড় পদ পায় তা বোধ্যগম্য নয়।

সদ্য গঠিত রংপুর সদর উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মামুনুর রশিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এ বিষয়ে রংপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মনিরুজ্জামান হিজবুল বলেন, যারা অতীতে দলের জন্য কাজ করেছেন তাদের নিয়েই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

আরও খবর

Sponsered content

error: ছি ! ছি !! কপি করার চেষ্টা করবেন না ।